অন্যান্য সংবাদআন্তর্জাতিকজাতীয়

জাতিসংঘ ও মিয়ানমারের মধ্যে স্বাক্ষরিত সমঝোতা স্বারককে স্বাগত জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র

জাতিসংঘের দুটি এজেন্সি ও মিয়ানমার সরকারের মধ্যে স্বাক্ষরিত সমঝোতা স্বারককে ইতিবাচক পদক্ষেপ হিসেবে আখ্যায়িত করেছে যুক্তরাষ্ট্র। একই সঙ্গে মিয়ানমার সরকারকে উৎসাহিত করা হয়েছে জাতিসংঘের ওই দুটি এজেন্সি ইউএনএইচসিআর এবং ইউএনডিপির সঙ্গে প্রতিশ্রুতি পূরণের জন্য। যাতে জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনান নেতৃত্বাধীন এডভাইজরি কমিশন অন রাখাইন স্টেটের করা সব সুপারিশ বাস্তবায়ন করা যায়। এ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হিদার নুয়েদার একটি বিবৃতি দিয়েছেন। তাতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া নির্যাতিত রোহিঙ্গা শরণার্থীদের স্বেচ্ছায়, নিরাপদে, মর্যাদার সঙ্গে, মিয়ানমারে স্থিতিশীল প্রত্যাবর্তন নিশ্চিত করার মতো পরিবেশ সৃষ্টিতে ইউএনএইচসিআর, ইউএনডিপি এবং মিয়ানমার সরকার যে সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর করেছে তার প্রতি সমর্থন জানাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। এক্ষেত্রে রোহিঙ্গাদের আদি জন্মস্থান যা-ই হোক না কেন এবং তারা যে স্থানকেই বেছে নিক না কেন তা ধর্তব্যের মধ্যে আনা যাবে না। হিদার নুয়েদার বলেন, এটা একটি ইতিবাচক পদক্ষেপ। আমরা এই সমঝোতা চুক্তিকে একটি আস্থা গঠনের পদক্ষেপ হিসেবে দেখছি যাতে, যদি তা বাস্তবায়িত হয় তাহলে মিয়ানমারে আক্রান্ত সব সম্প্রদায়ের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় মানবিক সহায়তা অনুমোদন করবে। মিয়ানমারকে সহায়তা করবে স্বেচ্ছায় প্রত্যাবর্তনের জন্য প্রয়োজনীয় পরিবেশ সৃষ্টি করতে। এতে সঙ্কট কাটিয়ে উঠতে সহায়তা হবে। রাখাইনে বসবাসকারী সব সম্প্রদায়ের সুবিধার জন্য স্থিতিস্থাপক উন্নয়ন হবে।