প্রিয় চট্রগ্রাম

চট্টগ্রাম শহরের নালাগুলো মৃত্যুফাঁদ!

এম মনির চৌধুরী রানা : চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের ( সিডিএ) অবহেলার কারণে আগ্রাবাদের নালায় পড়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীর মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে বলে মন্তব্য করেছেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশেনর মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী। তিনি বলেন, নালার পাশে নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিলে এই ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতো না। যে কোন উন্নয়ন কাজ করতে গেলে মানুষের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করতে হবে। তিনি আরও বলেন, যেখানে দুর্ঘটনা ঘটেছে সেখানে স্ল্যাব বসানোর এখন কোনো সুযোগ নেই। এসব স্থানে সিটি কর্পোরেশনের স্ল্যাব ছিল। কিন্তু সিডিএ ফুটপাত কেটে ফেলেছে। ফুটপাত ছিল ছয়ফুটের মতো। কিন্তু কেটে সিডিএ দুই ফুট আড়াই ফুট করে ফেলছে। এখানে কোনো নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়নি। কিন্তু নালায় কোনো ধরনের স্লাবও দেয়নি।

গতকাল সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) চট্টগ্রামের ডবলমুরিং থানার বাদামতলী মোড় এলাকার নালায় পড়ে নিখোঁজ সেহরিন মাহমুদ সাদিয়ার (২০) লাশ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিস। মৃত সাদিয়া (২০) একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী বলে জানা গেছে। তার বাড়ি নগরীর হালিশহর থানার বড়পুল মইন্যা পাড়া শুক্কুর মেম্বারের বাড়ি।জানা যায়, আগ্রাবাদ এলাকায় এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের কাজ চলছে। আগ্রাবাদ মোড় থেকে রবি অফিসের সামনে ও মাইজারগেট পর্যন্ত কোনো সড়কবাতি নেই। সন্ধ্যার পর এ এলাকা ঘুটঘুটে অন্ধকার হয়ে যায়। অন্ধকারে দেখতে না পেয়ে ও হালকা বৃষ্টিতে রাস্তায় পিছলে সাদিয়া নালায় পড়ে যান। এর আগে ২৫ আগস্ট ভারী বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হলে মুরাদপুর এলাকায় খালে পড়ে তলিয়ে যান সালেহ আহমদ নামে এক সবজি ব্যবসায়ী। যার হদিস এখনো মেলেনি। চলতি বছরের ৩০ জুন ষোলোশহর চশমা হিল এলাকায় খালের পাশের সড়ক দিয়ে যাওয়ার সময় খালে পড়ে যায় একটি অটোরিকশা। স্রোত থাকায় খালে তলিয়ে মারা যান চালক সুলতান (৩৫) ও যাত্রী খাদিজা বেগম (৬৫)।
উল্লেখ যে সাদিয়া (২০) নালায় পড়ে মৃত্যু ২৭/০৯/২১,সালেহ আহমদ নালায় পড়ে মৃত্যু ২৫/০৮/২১,সুলতানা খাদিজা বেগম মৃত্যু ৩০/০৬/২১।