জাতীয়স্বাস্হ্য

উদোর পিন্ডি, বুধোর ঘাড়ে : উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার নির্দেশেই শোভনদন্ডীতে টিকা দেয়া হয়

পটিয়া নিউজ.নেট: চট্টগ্রামের পটিয়ায় উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা সব্যচাষী নাথের নির্দেশেই আগাম গণটিকা চালু করা হয়। এখন উদোর পিন্ডি বুধোর ঘাড়ে চাপাতে তিনি ইপিআই টেকনিশিয়ান রবিউলের উপর দোষ চাপিয়ে নিজে নির্দোষ সাজার অপচেষ্টায় রয়েছেন।

তিনি উর্ধতন কর্তৃপক্ষের শাস্তি থেকে নিজে  বাঁচতে হাসপাতালের ইপিআই রবিউল হোসেনকে দোষারোপ করছেন। উপজেলার শোভনদন্ডী ইউনিয়নে দুটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অস্থায়ী ক্যাম্পের মাধ্যমে ইপিআই রবিউল হোসেন তাঁর সম্মতি এবং নির্দেশেই মানুষের মাঝে গণটিকা প্রদান করে।

এর আগে নিবন্ধন কাজ করা হয়। স্বাস্থ্য কর্মকর্তা সব্যচাষী নাথ নিজে টিকা প্রদানকালে শোভনদন্ডীতে পরিদর্শন করেছেন।

স্বাস্থ্য কর্মকর্তার সম্মতি নিয়ে টিকা প্রদান ও হাসপাতাল থেকে টিকা দেয়ার বিষয়টি প্রমান পাওয়া
যায়। এছাড়া টিএইচও জড়িত থাকার বিষয়টি কয়েকটি অডিও রেকর্ড ফাঁস হয়েছে।

জানা গেছে, পটিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের টেকনেশিয়ান ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা রবিউল হোসেন জাতীয় সংসদের হুইপ ও চট্টগ্রাম-১২ (পটিয়া)
আসনের সংসদ সদস্য সামশুল হক চৌধুরীর বাড়ির পাশে শোভনদন্ডী ইউনিয়ন আ’লীগের ব্যানারে আনুষ্ঠানিকভাবে গণটিকা প্রদান করেন। ক্যাম্পগুলোতে টিকাদান ও
নিবন্ধনের বিষয়ে সাপ্তাহ ধরে এলাকায় প্রচার প্রচারণা চালানো হয়। গত ৩০ জুলাই ও ৩১ জুলাই দুইদিন এলাকার বয়স্ক নারী পুরুষসহ ৩০ বছরের উপরের
বয়স্কদের মধ্যে গণটিকা দেন। এলাকাটি উপজেলার দুরত্ব এলাকা হওয়ায় এবং অধিকাংশ মানুষ অশিক্ষিত হওয়ায় হাজার হাজার বয়স্ক নারী পুরুষ নিবন্ধন করতে
পারেনি। এলাকার মানষকে সেবা দিতে এবং সরকারের টিকার সুফল পৌঁছে দিতে এ আয়োজন করেছে বলে স্থানীয় নেতা কর্মীরা জানান।

উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও হ্ইুপের উন্নয়ন সমন্বয়কারী আলমগীর খালেদ বলেন, এলাকার মানুষের উপকারের জন্য গ্রামে এসে স্বাস্থ্য কর্মীরা আনুষ্ঠানিকভাবে টিকা দিয়েছে এটা অনেকের সহ্য হচ্ছে না। হুইপের একটি বিরোধী শক্তিরা কিছু করতে
না পেরে পরিকল্পিতভাবে মিথ্যাচার করতেছে। আমি নিজেই উপস্থিত ছিলাম এ কর্মকান্ডের জন্য হুইপকে এলাকার বয়স্ক নারী পুরুষেরা হাত তুলে দলীয় নেতা কর্মী এবং হুইপের জন্য দোয়া করেছে। শোভনদন্ডী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ক্যাম্পের আয়োজক মাহবুবুল
কবির বলেন, এলাকার গরীব অসহায় বসয়স্ক হাজার হাজার নারী পুরুষ পটিয়ায় গিয়ে টিকা দেয়ার মত সময় আর সামর্থ না থাকায় লকডাউনে গাড়ি বন্ধ থাকায় পটিয়া
যেতে আসা যাওয়া ৩০০/৪০০ টাকা সিএনজি বা রিক্স ভাড়া দরকার হয়। গরীব অসহায় মানুষের কথা চিন্তা করে আমরা ক্যাম্প করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। বিষয়টি আমরা
স্বাস্থ কর্মকর্তা এবং হুইপ মহোদয়কেও জানিয়ে করেছি এখনো আমাদের পকেট থেকে
টাকা খরচ হয়েছে। বিনামূল্যে কাজ করতে গিয়ে এবং মানুষকে অযথা হয়রানি বিভ্রান্তিকর তথ্য দিয়ে আমাদের কাজটিকে বির্তকিত করতে চাচ্ছে একটি চক্র।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের টেকনেশিয়ান রবিউল হোসেন জানিয়েছেন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে করোনা টিকা নিতে প্রতিদিন লোকজন ভীড় করছেন। মুলত চাপ কমাতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে শোভনদন্ডী ইউনিয়নে দুটি ক্যাম্পের মাধ্যমে নিবন্ধন করে তাৎক্ষনিক টিকা প্রদান করা হয়েছে। মানুষের সেবা করা কি অপরাধ আমি বন্ধের দিনে অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে যাতে এলাকার
মানুষ উপকৃত হয়, এলাকার মানুষের সেবা করা বিষয়টি অনেকের সহ্য হচ্ছে না। তবে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা সব্যচাষী নাথ জানিয়েছেন, শোভনদন্ডীতে
গণটিকা চালু করলে তা বন্ধ করতে তিনি শোভনদন্ডীতে যান। শোভনদন্ডীতে বিনা অনুমতিতে ২টি ক্যাম্প করে টিকা প্রদানের বিষয়য়ে আামার কাছে কেউ লিখিতভাবে
জানানো হয়নি এবং ইপিআই রবিউল হুইপ মহোদয়ের বাড়িতে কথা বলে একক সিদ্ধান্তে কাজটি করেছেন তবে অনুমতি নেয়ার বিষয়টি কিছু অডিও রেকর্ড হাতে আসার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি কোন মন্তব্য করেনি, অডিওতে কি আছে বিষয়টি না শুনে কিছু বলতে পারব না।