দেশজুড়েপটিয়ার খবরপ্রিয় চট্রগ্রাম

পটিয়াসহ খরণাবাসীকে ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন মুরাদ চৌধুরী

পটিয়া নিউজ. নেট : পটিয়াসহ নিজ ইউনিয়ন খরনাবাসীকে পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা ও  অভিনন্দন জানিয়েছেন

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় যুব ও ক্রীড়া উপ-কমিটির সদস্য, পটিয়া নিউজ.নেট এর প্রধান পৃষ্ঠপোষক, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও শিক্ষানুরাগী  লায়ন গোলাম সারওয়ার চৌধুরী মুরাদ।

ঈদুল আজহা উপলক্ষে এক বানীতে তিনি বলেন, করোনার ভয়াবহতার মধ্যে দ্বিতীয়বারের মত ত্যাগ ও আত্মশুদ্ধির মহান ব্রত নিয়ে ঈদুল আজহা সমাগত।

অজানা আতংকে মানুষ। জীবন ও জীবীকার টানাপোড়েনের মধ্যে বর্তমান শেখ হাসিনা সরকার দুটোকেই গুরুত্ব দিয়ে দেশকে এই মহামারীর মধ্যেও উন্নয়নের মহাসড়কে নিয়ে গেছেন।

পটিয়ার মাটি ও মানুষের নেতা, হুইপ আলহাজ্ব সামশুল হক চৌধুরীর নেতৃত্বে পটিয়া আজ দেশের অন্যতম উন্নত এলাকা।  গত ১২ বছর পটিয়ায় হাজার হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন হয়েছে।

তিনি খরনাবাসীকে করোনা থেকে বাঁচতে দ্রুত টিকা নেয়ার আহবান জানান।

উন্নয়নের এই ধারাবাহিকতা অব্যহত রাখতে হলে হুইপ আলহাজ্ব সামশুল হক চৌধুরীর নেতৃত্বে এলাকায় যোগ্য জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত করতে হবে।

তিনি বলেন, প্রায় ৪ হাজার বছর আগে হযরত ইব্রাহিম (আঃ) ও ইসমাঈল (আঃ) যে আত্মত্যাগ আমাদের শিখিয়ে গেছেন তার মর্মবাণী আমাদের ধারণ করতে হবে।

গত দেড় বছর আমরা করোনা মহামারির কারণে এক ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছি। কুরবানির শিক্ষা নিয়ে অসহায়, অসুস্থ ও দরিদ্র জনগোষ্ঠীর পাশে দাঁড়ানো এখন আমাদের সবচেয়ে বড় কর্তব্য।

তিনি বলেন,  কুরবানি আমাদের মাঝে আত্মদান ও আত্মত্যাগের মানসিকতা সৃষ্টি করে,  আমাদের হৃদয়কে প্রসারিত করে।

কুরবানির মর্ম অনুধাবন করে সমাজে শান্তি ও কল্যাণের পথ রচনা করতে আমাদের সংযম ও ত্যাগের মানসিকতায় উজ্জীবিত হতে হবে।

ত্যাগের শিক্ষা আমাদের ব্যক্তি ও সমাজ জীবনে প্রতিফলিত হলেই প্রতিষ্ঠিত হবে শান্তি ও সৌহার্দ্য।

করোনা ভাইরাসে স্বজনহারা মানুষের ঘরে আসবে না ঈদের আনন্দ। আবার শহর থেকে যারা নিজ নিজ এলাকা ও গ্রামে গিয়েছে, তাদের স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার আহবান জানান তিনি।

পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তায়লা এরশাদ করেন, আমি প্রত্যেক উম্মতের জন্য কুরবানি এক বিশেষ রীতি পদ্ধতি  নির্ধারণ করে দিয়েছি,যেন তারা ওই সব পশুর উপর আল্লাহর নাম নিতে পারে,যা আল্লাহ তাদেরকে দান করেছেন। (সুরা হজ: আয়াত ৩৪) এবং চার হাজার বছর আগে আল্লাহর হুকুমে হযরত ইব্রাহীম (আঃ) তার সবচেয়ে প্রিয় একমাত্র ছেলে হযরত ইসমাইল (আঃ) কে কুরবানি করার উদ্দ্যোগ নেন।

তবে আল্লাহর কুদরতে হযরত ইসমাইল (আঃ) এর পরিবর্তে একটি দুম্বা কুরবানি হয়। হযরত ইব্রাহীম (আঃ) এই ত্যাগের দৃষ্টান্ত স্মরণ করে বিশ্ব মুসলমানরা প্রতি বছর কুরবানি করে থাকে। তবে আল্লাহর পথে ত্যাগই ঈদুল আজহার প্রধান শিক্ষা। পশু জবেহ করে তা বিলিয়ে দেওয়া দান নয়, এইটা আমাদের ধর্মীয় কর্তব্য।

তিনি পটিয়াবাসীর সুখ-সমৃদ্ধি ও কল্যান কামনা করে বলেন, জণগণের জন্য রাজনীতি করি। আমার এলাকার ধর্ম বর্ন সব শ্রেনি পেশার মানুষ ভালো থাকলেই আমি ভালো থাকি।

খরনাবাসীর  উন্নয়নে আমার ব্যাপক কর্মপরিকল্পনা রয়েছে।  এলাকাবাসীকে সাথে নিয়ে খরনার উন্নয়নে কাজ করে যাব ইনশাআল্লাহ।

পরিশেষে তিনি হুইপ আলহাজ্ব সামশুল হক চৌধুরী ও তার ব্যক্তিগত পক্ষ থেকে আবারও পটিয়বাসীকে শুভেচ্ছা ঈদ মোবারক জানান।