জাতীয়পটিয়ার খবরপ্রিয় চট্রগ্রামরাজনীতি

নৌকায় ভোট দিন; প্রতিটি প্রতিশ্রুতি অক্ষরে অক্ষরে পালন করবো- আইয়ুব বাবুল

এটিএম তোহা : পটিয়া পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী আইয়ুব বাবুল বলেছেন নির্বাচনী মেনিফেস্টোতে যেসব প্রতিশ্রুতি দেওয়া আছে, নির্বাচিত হলে তা অক্ষরে অক্ষরে পালন করব। নগরপিতা নয়, নগর সেবক হিসেবে আপনারা আমাকে সবসময় কাছে পাবেন।

তিনি গতকাল দলীয় কার্যালয়ে তার নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণাকালে এসব কথা বলেন। আইয়ুব বাবুল বলেন, তৃণমূল থেকে আমার রাজনৈতিক উত্থান। মানুষের সমস্যা ও এলাকার সমস্যা আমার নখদর্পণে আছে। আমি পটিয়া পৌরসভাকে মাননীয় হুইপ মহোদয়ের সহযোগিতায় একটি আদর্শ পৌরসভায় পরিণত করতে চাই।

আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি আপনারা আমাকে নৌকা মার্কায় ভোট দিন; আমি বিজয়ী হয়ে আপনাদের সেবক হতে চাই।

জনাকীর্ণ সাংবাদিক সম্মেলনে নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণাকালে উপস্থিত ছিলেন, পটিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরী, পৌরসভার মেয়র অধ্যাপক হারুনুর রশিদ, যুবলীগের সহ-সম্পাদক বদিউল আলম,দক্ষিণজেলা যুবলীগের সভাপতি আ,ম,ম টিপু সুলতান চৌধুরী, পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলমগীর আলম, সেক্রটারী নাছির প্রমূখ নেতৃবৃন্দ।

আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী সাবেক ছাত্রনেতা আইয়ুব বাবুল শুক্রবার  সকালে নির্বাচনী ইশতিহার প্রকাশ করেন।

ইশতিহারে তিনি পটিয়া পৌরসভার উন্নয়ন পরিকল্পনা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, নির্বাচিত হলে পটিয়া পৌরসভাকে একটি নাগরিক বান্ধব, বাসযোগ্য, পরিবেশ উপযোগী, শিক্ষা, সংস্কৃতি ও বিনোদন বান্ধব নগর হিসেবে গড়ে তুলবো।

আমি চাই সাংবাদিকরা আমাকে নির্বাচনে জয়লাভের ব্যাপারে পরামর্শ ও সহযোগিতা করুক। আমি এখনও নির্বাচনী ইশতেহার প্রকাশ করেনি। তবুও নির্বাচনী ইশতেহারে আমি শিক্ষা,সংস্কৃতি, বিনোদন,খেলাধুলা বান্ধব একটি শহর হিসেবে পটিয়া পৌরসভাকে গড়ে তুলতে চাই।

এখানে মাদকের বিস্তার রোধ করা হবে, ইভটিজিং চিরতরে বন্ধ করা হবে, সন্ত্রাস-চাঁদাবাজি থাকবেনা। ব্যবসায়ীরা নিরাপদে ব্যবসা করবে। ছাত্রীরা নিরাপদে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আসা-যাওয়া করবে। শিশুরা খেলাধুলা করে সময় কাটাবে। নারীদের জন্য স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে মেটারনিটি হাসপাতাল চালু করা হবে। বৃদ্ধদের জন্য ব্যায়ামাগার ও বিনোদনের ব্যবস্থা করা হবে।

গরীব ও মাতৃ-পিতৃহীন মেয়েদের আর্থিক সহযোগিতা দিয়ে বিয়ের ব্যবস্থা করা হবে। গরীব ও দরিদ্র শিক্ষার্থীদের জন্য ফ্রি কোচিং ছাড়াও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বেতন মওকুফের উদ্যোগ নেয়া হবে।

মেধাবী শিক্ষার্থীদের পৌরসভার পক্ষ থেকে প্রতিবছর সম্বর্ধনা দেয়ার ব্যবস্থা করা হবে। তিনি বলেন, পটিয়া পৌরসভা এলাকায় একটি বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের উদ্যোগ নেয়া হবে।

ওয়ার্ড ভিত্তিক শিক্ষিত ও সম্মানী লোকদের নিয়ে উন্নয়ন পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তাবায়ন করা হবে।

তিনি বলেন, আমি পটিয়া পৌরসভার উন্নয়ন নিয়ে যে স্বপ্ন দেখেছি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ সে উন্নয়ন বাস্তবায়নে আমাকে দায়িত্ব দিয়েছেন। আমি চাই আমার এলাকার ভোটাররা ভোট দিয়ে আমাকে সে সুযোগ প্রদান করবে।

আমি কখনো মেয়র হিসেবে আপনাদের কাছে যাবনা। আমি আপনাদের কাছে যাব একজন সেবক হিসেবে। আমার কোন ভুল-ত্রুটি থাকলে আপনারা আমাকে ক্ষমা করবেন, পরামর্শ দিবেন। আমি আপনাদের সাথে নিয়েই পটিয়া পৌরসভার উন্নয়ন করতে চাই।