জাতীয়পটিয়ার খবরবিনোদন

দুর্নীতিবিরোধী দিবসে টিআইবি’র ১০ দফা দাবী

করোনা মোকাবিলায় দুর্নীতির বিরুদ্ধে ‘শূন্য সহনশীলতা’ নীতির কঠোর ও পক্ষপাতহীন বাস্তবায়নের দাবি  সনাক-টিআইবির; দুর্নীতিবিরোধী দিবসে টিআইবি’র ১০ দফা দাবী
 পটিয়া, ১০ ডিসেম্বর ২০২০: জাতীয় ও স্থানীয় পর্যায়ে দুর্নীতিবিরোধী বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে প্রতিবছরের ন্যায় এবারও ৯ ডিসেম্বর জাতিসংঘ ঘোষিত আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস উদযাপন করেছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। ‘করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় দুর্নীতির প্রতি শুন্য সহনশীলতা: দুর্নীতি থামাও, জীবন বাঁচাও’ এই প্রতিপাদ্যে দিবসটি উদযাপন করেছে সংস্থাটি।
পটিয়া উপজেলার বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে সনাক-টিআইবি দিবসটি উদ্যাপন করে। কর্মসূচির অংশ হিসেবে গতকাল ৯ ডিসেম্বর বিকেল তিনটায় অনলাইনে ‘দুর্নীতিবিরোধী সামাজিক আন্দোলনে তারুণ্য’ শীর্ষক একটি ভার্চুয়াল আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। সনাক সভাপতি অধ্যাপক অজিত কুমার মিত্রের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উক্ত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পটিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফয়সাল আহমেদ। এতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পটিয়া উপজেলা শিক্ষা অফিসার আবু আহমেদ, সমাজসেবা অফিসার পিপলু চন্দ্র নাথ, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মাইনুদ্দিন মজুমদার, উপজেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তা মীর আন্-নাজমুস সাকিব, দুপ্রকের পটিয়া উপজেলার সহ-সভাপতি ড. সংঘপ্রিয় মহাথেরো, সনাক সদস্য অ্যাড. কবিশেখর নাথ পিন্টু, ব্যবসায়ী নেতা শাহ আলম খোকন, স্বজন সদস্য রাহুল মজুমদার, ইয়েস দলনেতা দীপ্ত বড়–য়া প্রমুখ। টিআইবি চট্টগ্রাম ক্লাস্টারের প্রোগ্রাম ম্যানেজার মো. জসিম উদ্দিনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত উক্ত আলোচনা সভায় দুর্নীতিবিরোধী দিবসের টিআইবি’র ধারণাপত্র উপস্থাপন করেন সনাক সদস্য গৌতম চৌধুরী। এছাড়াও ৫ ডিসেম্বর দুর্নীতিবিরোধী গল্পবলা প্রতিযোগীতা ও ৭ ডিসেম্বর দুর্নীতিবিরোধী কুইজ প্রতিযোগীতার আয়োজন করা হয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেন, দুর্নীতি বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান সমস্যা। করোনা মহামারীতেও অনেকে দুর্নীতির সাথে জড়িত রয়েছে যা মোটেও কাম্য নয়। তিনি বলেন, পটিয়ায় যাতে কেউ এই মহামারীতে দ্রব্যমূলের অতিরিক্ত দাম নিতে না পারে সেদিকে নজর রাখা হবে। তিনি আরো বলেন, সরকারি সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিতে কোন অনিয়ম যাতে না হয় সে ব্যাপারে উপজেলা প্রশাসন সজাগ রয়েছে। একজন শিক্ষার্থীর এক প্রশ্নের জবাবে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেন, যদি কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বা সরকারি কোন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির সুনির্দিষ্ট অভিযোগ থাকে তা সাথে সাথে জানালে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তিনি ঢালাওভাবে কোন অভিযোগ না করে সুনির্দিষ্ট তথ্য প্রমাণসহ অভিযোগ জানানোর জন্য পরামর্শ প্রদান করেন। 

আলোচনা সভায় আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস ২০২০ উপলক্ষে দুর্নীতি প্রতিরোধে বিশেষ করে চলমান কোভিড অতিমারি মোকাবিলায় দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণে টিআইবি সংশ্লিষ্ট অংশীজনের বিবেচনার জন্য সুপারিশসমূহ তুলে ধরেন;
১. করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় এখনই সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক, স্বাস্থ্য পরামর্শক, সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তা ও নাগরিক সমাজকে অন্তর্ভুক্ত করে কার্যকর, সমন্বিত, অংশগ্রহণমূলক, সময়াবদ্ধ ও বাস্তবায়নযোগ্য যথাযথ উদ্যোগ গ্রহণে সরকারকে সচেষ্ট হতে হবে;
২. বিনামূল্যে নমুনা পরীক্ষার সুবিধা সকল জেলায় সম্প্রসারণ করতে হবে, নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা বাড়াতে হবে। নমুনা পরীক্ষা থেকে শুরু করে ফলাফল প্রদান পর্যন্ত প্রতিটি ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ পেশাদারিত্ব এবং স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে হবে;

৩. স্বাস্থ্য খাতের সব ধরনের ক্রয়ে সরকারি ক্রয় আইন ও বিধি অনুসরণ করতে হবে। জরুরিসহ সকল ক্রয় ই-জিপিতে করতে হবে;
৪. করোনা সংকটকালে স্বাস্থ্য খাতে সংঘটিত অনিয়ম ও দুর্নীতি বন্ধে সাময়িক ‘লোকদেখানো’ উদ্যোগের বিপরীতে যথাযথ ও কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। দুর্নীতিবিরোধী অভিযানের বাস্তব সুফল নিশ্চিতে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত ‘‘কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না” এই অঙ্গীকারের যথাযথ বাস্তবায়ন করতে হবে;
৫. দুর্নীতির মূল হোতাদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করে তাদের সিন্ডিকেট ভেঙে দিতে হবে, যতে দুর্নীতির বিরুদ্ধে পদক্ষেপের বিষয়টি আনুষ্ঠানিকতার মধ্যেই সীমাবদ্ধ হয়ে না থাকে;
৬. বৈশি^ক এই বিপর্যয় মোকাবিলা ও টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট অর্জনে সিদ্ধান্তগ্রহণ প্রক্রিয়ায় তরুণদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে;

৭. সংকট মোকাবিলায় গণমাধ্যমের ওপর অব্যাহত প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ চাপ বন্ধ করতে হবে, যা গণতন্ত্রের জন্য অশনিসংকেত ও আত্মঘাতিমূলক। অবিলম্বে মুক্ত সাংবাদিকতার পথ উন্মুক্ত করতে সরকার ও সংশ্লিষ্ট সকলকে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে হবে। সকল নাগরিকের বাক্স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন’ এর নিবর্তনমূলক ধারাসমূহ বাতিল করতে হবে;
৮. অন্তর্ভুক্তিমূলক টেকসই অভীষ্ট অর্জনে সকল অভীষ্টের কার্যকর বাস্তবায়নের পূর্বশর্ত হিসেবে অভীষ্ট-১৬ এর ওপর সর্বাধিক প্রাধান্য নিশ্চিত করতে হবে এবং এ লক্ষ্যে উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে;
৯. দুর্নীতির বিরুদ্ধে সাধারণ জনগণ, গণমাধ্যম ও বেসরকারি সংগঠনসমূহ যাতে সোচ্চার ভূমিকা পালন করতে পারে, তার উপযুক্ত পরিবেশ নিশ্চিতে সরকারকে কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে;
১০. ঋণ খেলাপিতে জর্জরিত ও খাদের কিনারায় থাকা ব্যাংকিং খাতে বিশেষ করে করোনা সংকটকালেÑ দুর্নীতি, জালিয়াতি ও নজিরবিহীন আর্থিক কেলেঙ্কারির সাথে সম্পৃক্ত ব্যক্তিবর্গকে বিচারের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। এক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় সংস্কার প্রস্তাবনা প্রণয়নের জন্য নিরপেক্ষ, যথাযথ যোগ্যতাসম্পন্ন, নিরপেক্ষ ও স্বার্থের দ্ব›দ্বমুক্ত বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে একটি স্বাধীন ব্যাংকিং কমিশন গঠন করতে হবে।