জাতীয়দেশজুড়েপ্রিয় চট্রগ্রাম

আটক হচ্ছেন কর্ণফুলীর নারী ভাইস চেয়ারম্যান বানাজা ও তার স্বামী!

চট্টগ্রামের কর্ণফুলী উপজেলায় ঠিকাদারি কাজের বিলের ফাইলে স্বাক্ষর না হওয়ায় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) কার্যালয়ের জিনিসপত্র ভাঙচুর ও হিসাবরক্ষককে মারধর করার অভিযোগে উপজেলা নারী ভাইস চেয়ারম্যান বানাজা বেগম ও তাঁর স্বামী মামুনুর রশিদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে। যে কোন সময় তাকে তার স্বামীসহ আটক করতে পারে পুলিশ। এর আগেও বানাজা বেগম এলাকায় অনেক আলোচিত ঘটনার জন্ম দিয়েছেন। এবার সরকারের উচ্চ পর্যায়ে বিষয়টি গোচরীভূত হলে প্রশাসনকে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

ভুক্তভোগী ওই হিসাবরক্ষক সোমবার (২৭ জুলাই) রাত সাড়ে ১০টায় থানায় গিয়ে মামলা দায়ের করেন। মামলায় কর্ণফুলী উপজেলা পরিষদের নারী ভাইস-চেয়ারম্যান বানাজা বেগম নিশি ও তার স্বামী মামুনুর রশিদের (৪৫) নাম উল্লেখসহ আসামি করার পাশাপাশি আরও ৭/৮ জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে।

কর্ণফুলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইসমাইল হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করে  বলেন, মারধরের ঘটনায় প্রকৌশল অফিসের হিসাবরক্ষক থানায় মামলা দায়ের করেন। এসময় তার সঙ্গে উপজেলা প্রকৌশলী জয়শ্রী দে থানায় স্বশরীরে উপস্থিত ছিলেন।

এজাহার সূত্রে জানা গেছে, গত রোববার বেলা সাড়ে ১১টায় উপজেলা এলজিইডি কার্যালয়ের হিসাবরক্ষক মো. রফিক উল্লাহর কক্ষে গিয়ে উপজেলা পরিষদের নারী ভাইস চেয়ারম্যান বানাজা বেগম তাঁর মালিকানাধীন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নিসাম কনস্ট্রাকশনের জামানত ফেরতসংক্রান্ত ফাইলগুলোর অবস্থা জানতে চান। ওই সময় রফিক উল্লাহ উপজেলা প্রকৌশলী এখনো ফাইলে স্বাক্ষর করেননি জানালে চটে যান বানাজা বেগম। কিছুক্ষণ পর বানাজা তাঁর স্বামী মামুনসহ আরও সাত থেকে আটজনকে নিয়ে পুনরায় হিসাবরক্ষক রফিকের কক্ষে ঢুকে তাঁকে শারীরিকভাবে নাজেহাল করেন। এ সময় অফিসের জিনিসপত্রও ভাঙচুর করেন তাঁরা।