অন্যান্য সংবাদজাতীয়দেশজুড়েধর্ম ও জীবন

সর্বমহলে প্রশংসিত, গাজীপুরে এক গার্মেন্টস কারখানায় নামাজ বাধ্যতামূলক

গাজিপুরের একটি গার্মেন্টস কারখানায় তিন বেলা নামাজ বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। অফিস চলাকালীন যোহর, আসর ও মাগরিব- এই তিন ওয়াক্ত নামাজ মসজিদে গিয়ে পড়তে বলা হয়েছে। গাজীপুরের মাল্টিফ্যাব্স লিমিটেড নামের ওই প্রতিষ্ঠানে গত ৯ই ফেব্রুয়ারি এমন নোটিশ টানানো হয়। কর্তৃপক্ষ বলছে, কর্মীদের মধ্যে মতভেদ-দুরত্ব কমানোর উপায় হিসেবে তারা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তাছাড়া এতে স্বাস্থ্যের ইতিবাচক দিক রয়েছে বলেও মনে করছেন তারা।   

নোটিশে বলা হয়েছে, এই তিন ওয়াক্ত নামাজ পড়তে যাওয়ার সময় পাঞ্চ মেশিনে পাঞ্চ করতে হবে। তাতে আরও লেখা রয়েছে, ‘যদি কোন স্টাফ মাসে সাত ওয়াক্ত পাঞ্চ করে নামাজ না পড়েন তবে সেক্ষেত্রে উক্ত ব্যক্তির বেতন হতে একদিনের সমপরিমাণ হাজিরা কর্তন করা হইবে।’

এ ব্যাপারে ফ্যাক্টরিটির অপারেশন্স বিষয়ক পরিচালক মেসবাহ ফারুকী গণমাধ্যমকে বলেন, আমরা সবাই নামাজ পড়ি। আমরা যারা ইসলাম ধর্মের অনুসারী, তাদের নামাজ পড়া ফরজ। এখানে মুসলমান যারা আছেন তারা সবাই নামাজ পড়ে।

কিন্তু তারা নামাজ পড়ে বিক্ষিপ্তভাবে।

কর্মীদের মধ্যে মতভেদ-দূরত্ব কমানোর একটি উপায় হিসাবে কারখানায় নামাজ বাধ্যতামূলক করার এই সিদ্ধান্ত বলে তিনি জানান। বলেন, আমাদের এখানে বিভিন্ন মতভেদের লোক আছে। এখানে একটা টিম হিসেবে কাজ করতে হয়। এখানে ফেব্রিক ডিপার্টমেন্টের সঙ্গে নিটিং সেক্টরের হয়তো একটা সমস্যা থাকে। একেকজন একেকজনের ওপর দোষারোপ সারাদিন চলতেই থাকে। তো আমি এটার সমাধান হিসেবে চিন্তা করলাম তাদের যদি একসঙ্গে বসানো যায়, একসঙ্গে কিছু সময় যদি তারা কাটায়, তাদের মধ্যে দূরত্বটা কমবে।

মেসবাহ ফারুকী বলেন, তাছাড়া সারাদিন বসে বসে কাজ করায় কোলেস্টেরল বাড়ছে, ডায়াবেটিস বাড়ছে। মসজিদ চারতলায় হওয়াতে কিছুটা ব্যায়ামও হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, বিষয়টি তাদের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার, তারা অন্য কোন ধর্মাবলম্বীকে নামাজ পড়তে বাধ্য করছেন না।

সোস্যাল মিডিয়ায় এ নিয়ে অনেকেই ইতিবাচক মন্তব্য করেছেন

মো:মামুন উদ্দিন

মাশাল্লাহ আল্লাহ যেন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ার জন্য তৌফিক দান করুন সবাইকে আমিন।

Mak Azad

১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০, রবিবার, ১১:০৮

এই মহতি উদ্যোগকে স্বাগত জানাই,মাশা-আল্লা, আলহামদুলিল্লা।

নাছিরউদ্দীন

১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০, রবিবার, ১১:০৬

মা’শা আল্লাহ। খুবই ভালো উদ্যোগ। এটা নিয়ে কেউ যাতে বাড়াবাড়ি না করে। আল্লাহ আমাদের সবাইকে সঠিক বুঝ দান করুন।

Mohammad

Alhamdulillah. May Almighty Allah bless this factory to grow and prosper, May Allah guide all Muslim industries’ owners to follow such a novel decision. Ya Rabb give Barakah to the owners and all employees of the factory. Ameen

MOHAMMAD JAHIR UDDIN

Alhamdulillah…

naser

Alhamdulillah. Thanks to take a great decision.

মুহাম্মদ আমিনুর রহমা

আল্লাহ্ আপনাদের এই কীর্তিকে কবুল করুন: আমীন

Dr.Noor Mohammad

উত্তম কাজ।আল্লাহ গার্মেন্টস মালিক কে ব্যবসায় বরকত দিন।

রির

সর্বকালের সর্ব শ্রেষ্ঠ কাজ করা হয়েছে

মোঃ জিলন

অসংখ্য ধন্যবাদ আপনার আপনাদের।

Sheikh Md Humayun ka

সুন্দর একটা সিদ্ধান্ত নিলেন আপনি ভাই।আশা করি আপনি এর সুফল পাবেন খুব শিহরিই।আমিও একজন ব্যবসায়ী Wall ,Floor,and ceiling of importer) যদি আপনার কোম্পানির জন্য কিছু উপকার করতে পারতাম নিজেকে ধ মনে করতাম।

Roky

ভেদাভেদ ভুলে যখন সবাই এক কাতারে দারাবে আল্লাহু সুবাহানাহু তায়ালার জন্য।তখন আল্লাহ সকলের মধ্যে ভালোবাসা তৈরী করে দিবেন।

shafiq shapon

It’s a teaching for all others.

m hassan

super decision Alhamdullilah

Kibria khan

উত্তম কাজ। অনেক ধন্যবাদ । সকল মুসলিমের এটাই করা উচিত ।

আতিকুর রহমান ভূঁইয়া

একজন মুসলিম এবং একজন কাফেরের মাধ্যে পার্থক্য হল নামাজ। একজন মুসলমানের ইমানি দায়িত্ব হল নামাজ পড়া। বাংলাদেশের প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে মুসলিমদের জন্য নামাজ বাধ্যতামূলক করা হোক। এতে প্রতিষ্ঠান থেকে দূর্ণীতি কমে যাবে। মানুষে সাথে মানুষের ভালবাসা তৈরি হবে।

Kamal

Alhamdulilla good plan